March 8, 2021, 3:48 pm

শিরোনাম
জয় হোক মানবতার, জয় হোক সাপোর্ট এর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে ইরাক প্রবাসী খোলা চিঠি। টাকার মেশিন এমপি নূর মোহাম্মদের বিকাশ নাম্বার, অজ্ঞাত উৎস থেকে প্রতিদিন ঢুকছে টাকা! বাংলাদেশ থেকে ১২ হাজার কর্মী নেবে সিঙ্গাপুর ও রোমানিয়া কৌশলে রেজিস্ট্রেশন করে টিকা নিচ্ছেন ৪০ বছরের কম বয়সীরাও! বিশ্ববিদ্যালয় খুলবে ২৪ মে,আবাসিক হল ১৭ মে: শিক্ষামন্ত্রী পিরোজপুরে স্কুল শিক্ষিকার বাসা থেকে গৃহপরিচারিকার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার। “বকুলতলা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে অমর একুশের ভাষা শহিদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ ও পুষ্পস্তবক অর্পণ” ভাষা শহীদদের জন্য বায়তুল মোকাররমে দোয়া ও মোনাজাত বাগেরহাটে গাছে আমের মুকুলে ভরপুর স্বপ্ন বুনছেন চাষিরা।

এক মাসের ছুটি নিয়ে ১১ বছর বিদেশ তার পরেও শিক্ষীকার চাকুরী বহাল

সাইফুল ইসলাম: জামালপুরে এমপি কন্যা এক মাসের অসুস্থতা ছুটি নিয়ে ১১ বছর ধরে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত রয়েছেন। ইসলামপুর উপজেলায় জে জে কে এম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষিকা হিসেবে কমর্রত ছিলেন। ১১ বছর ধরে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকলেও তার বিরুদ্ধে নেয়া হয়নি কোন ব্যবস্থা। ওই শিক্ষিকা জামালপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ফরিদুল হক খান দুলালে মেয়ে ফারজানা হক।

বিদ্যালয় সূত্র জানা গেছে, এমপির মেয়ে ফারজানা হক ২০০৫ সালে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক হিসেবে চাকরি পান। তিনি ২০০৯ সালে জে জে কে এম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগ দেন। সেখানে কয়েকদিন ক্লাস নেন। পরে ওই বছরই তিনি অসুস্থতাজনতি কারণে এক মাসের ছুটি নিয়ে স্বামী সন্তান নিয়ে অস্ট্রেলিয়াতে চলে যান। এরপর থেকে তিনি কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন। তারপরও তার বিরুদ্ধে এখনো কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

জে জে কে এম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আশরাফুর রহমান বলেন, তিনি বিদ্যালয়ে না আসলেও বেতন উত্তোলন করেন না। তবে তার পদ থেকেও অব্যাহতিও দেননি। তবে শুনেছি, তিনি অস্ট্রেলিয়া থেকে কিছুদিনের মধ্যে এসে, এর একটা ব্যবস্থা করবেন। ইসলামপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. ফেরদৌস বলেন, ওই শিক্ষিকা ২০০৯ সালে অসুস্থতাজনিত কারণে এক মাসের ছুটি নেন।

এরপর থেকে তিনি কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন। তবে তিনি এরপর থেকে বেতনও উত্তোলন করেননি। তার বিরুদ্ধে সব ধরনের ব্যবস্থা নিবে জেলা অফিস। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো.আব্দুর রাজ্জাক বলেন, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে একটি প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে যানা যায়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved, প্রবাসী ক্লাব ফাউন্ডেশন- The Expat Club Foundation. (এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি)।  
Design & Developed By NCB IT
Shares