May 16, 2021, 11:08 am

শিরোনাম
পিরোজপুরে অসহায় কর্মহীন মানুষের পাশে “ফ্রেন্ডস’ ৯৭ পিরোজপুর” লকডাউন বাড়ছে ১৬ মে পর্যন্ত, এক জেলা থেকে আরেক জেলায় গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। প্রবাসী আয়ে ঢল, রিজার্ভ বেড়ে ৪৫ বিলিয়ন ডলার,এপ্রিলে ২০৬ কোটি ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা । মে মাসের প্রথম দুই দিনে এসেছে ১৫ কোটি ৪০ লাখ ডলার। যত টাকা লাগুক, প্রয়োজনীয় করোনার টিকা আনা হবে: প্রধানমন্ত্রী পিরোজপুর জেলা সেভ দ্যা ফিউচার ফাউন্ডেশনের পবিত্র রমজান মাসে খাদ্যদ্রব্য বিতরণ। পিরোজপুর HDTএর সৌজন্যে সেলাই মেশিন বিতরণ। লকডাউনে পিরোজপুর শহরে মাদকের ভয়াবহতা বেড়ে যাওয়ার অভিযোগ! করোনাকালে অসহায় কৃষকের ধান কেটে দিলেন পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগ। একসঙ্গে কাজ করবে হোয়াটসঅ্যাপ ও ফেসবুক মেসেঞ্জার মেয়ের বিরুদ্ধে হত্যার চেষ্টা ও ষড়যন্ত্র মুলক মামলা দায়ের করলো “মা”।

লাব্বাইক ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস’ এর প্রতারণা সৌদিতে বিপাকে ১০০ শ্রমিক।

অনলাইন ডেস্ক : ফাইভ স্টার হোটেলে’ চাকরির কথা বলে শতাধিক বাংলাদেশী শ্রমিককে সৌদি আরব পাঠানো হলেও তাদের কেউই ওই হোটেল দেখা তো দূরের কথা, অদ্যাবধি কফিলও (নিয়োগকর্তা) খুঁজে পাননি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এখন পর্যন্ত কারোর নামে ইকামাও হয়নি। একারণে দীর্ঘ এক বছরের বেশি সময় ধরে রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক তার প্রতিনিধির মাধ্যমে একাধিক কোম্পানিতে শ্রমিকদের ‘ছুটা’ কাজ দেয়ার ব্যবস্থা করলেও ওই কোম্পানিগুলো কাউকে ঠিক মতো বেতন পরিশোধ করেনি। বেতন না পাওয়ার কষ্টের কারণে তাদের দিন কাটছে অনাহারে। কেউ কেউ দেশ থেকে ঋণ করে যাওয়া লাখ লাখ টাকা কিভাবে পরিশোধ করবেন সেটি ভেবেই এখন অনেকে দিশেহারা।

প্রতারিত শ্রমিকরা ঢাকার রিক্রুটিং এজেন্সি ‘লাব্বাইক ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস’-এর মালিকের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগের তদন্ত করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে তারা বলছেন, কফিলের মাধ্যমে ইকামা তৈরি করে চুক্তি মোতাবেক তাদেরকে চাকরির ব্যবস্থা করানোর জন্য তারা প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র ও প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রীর দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

মক্কা জাবালে নূরের পাশে ইশারা আদিল এলাকায় বর্তমানে মানবেতর জীবন কাটানো ২৩ জন শ্রমিকের মধ্যে ভোলার বাসিন্দা মো: বিল্লাল ও বাঞ্ছারামপুরের বাসিন্দা দুলাল ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমরা লাব্বাইক ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরসের মাধ্যমে চার লাখ টাকা খরচ করে এসেছি; কিন্তু আসার পর থেকে এ পর্যন্ত শুধুই প্রতারিত হয়েছি। কাজ নেই। ইকামা নেই। বাড়িতে পরিবার কষ্টে আছে। ধারদেনা করে এসেছি। এখন কী হবে ভেবে পাচ্ছি না। না হলে দেশে ফেরত নিয়ে যাক।

 

শেয়ার করুন

© All rights reserved, প্রবাসী ক্লাব ফাউন্ডেশন- The Expat Club Foundation. (এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি)।  
Design & Developed By NCB IT
Shares